Category Archives: Blog

Internship Experience of Rachana Das

I had been associated with ToI as a part of my Summer Internship Programme arranged by my college IISWBM .  My journey with Treasures of Innocence has been overwhelming. It has shown me the reality of the less-privileged children, their misery, their unfortunate predicament and also unfolded before me their innocent yet resilient fortitude to fight against all odds. While dealing with case studies on children, being part of the making of their report, I came across stories of their innocent efforts and success in overcoming their inhibitions and insecurities, diligently and professionally assisted by the facilitators at ToI. I have gained a lot of perspective and also understood how important it is to bring these children to light and help them hone their individual skills, as they are very capable of becoming equally self-reliant and self-confident adults as any of those children from a privileged background.

In each children lies a genius, be it in any field, and the members of ToI makes sure to bring to surface the potential of individual children through different activities carried out as a part of its different programmes and projects. The positive impact that ToI makes on a section of society with under-privileged children coming from slums, orphanages and childcare homes, in Kolkata and its suburbs, is worth appreciation and it feels great to see that each member continuously works towards the betterment of their endeavour to make a significant impact on this part of society. I’m grateful to be a part of their work on this noble cause of uplifting the lives of these children.

ToI is an organization who have awed me in their tireless working structure that assures a holistic growth in the children, marks their safety and security and thus giving them a better future. I am very grateful to be able to work with team ToI and be closely associated to it as a summer intern. Everything learnt here will surely be of immense help in future in my work field and each moment spent associating with team ToI will be cherished and remembered with a grin.

Published by:

Internship Experience of Shree Chakraborty

When one joins an NGO as an intern, the candidate mainly has this in mind that he or she will be fulfilling their roles as a community personnel, ToI have completely disrupted that belief in me. Interning at Treasures of Innocence is not merely a social responsibility but helped me dig various skills. As a virtual summer intern at ToI, it exposed me to such diverse works from managing community to be technologically sound.  Considering the current havoc, we are in right now, alongside with creating awareness for children and their family, this internship helped me gain knowledge in things which are so common yet easily ignored. Supervised by Rani ma’am in every step, the workload seemed very connected to my goal as the mission directed towards a hope for change. ToI works for their children and is always on the run to bring up new ideas in engaging them, benefitting them and help them learn to be proud and responsible. From relief operations; creating awareness measures specific to local needs, to taking care of their physical and mental wellbeing through online activity sheets and tele counselling; giving them chance to beat boredom and advent newer ways to unlearn and learn with the friendship boat, ToI has been working really hard to create a strong virtual ground for their children and it gave young individuals like us the chance to hone our skills and ideas to be more humane and see beyond our own world. The whole team at ToI emphasizes on creating a strong bond within our own colleagues to make us feel together and connected to the one cause we are all working for. This internship experience will always be special and unique to me as it brought me closer to my field of study (MSW) by giving me a clearer sight to the vulnerabilities faced and the role privileged human can play in creating a conscious society.

Published by:

Am I Less Than a Superhero?

Rajesh Chouhan , is a  26 year old migrant labour who was working for an IT hub in Bengaluru walked 1250 miles(2000 kilometre) to reach his village in the northern state of Uttar Pradesh. He lost his job when the national lockdown began. He was stranded at Bengaluru with many other migrant labourers without job, food, shelter and savings. With no way to survive in the cities and as the vast railway network was also shut , Rajesh decided to walk to his family with few more labourers of same village. At first he tried for vehicles and train service for going back to his village after 3rd May.  But the vehicles were demanding high fees and he had just Rs150 left with him. Normally he pays 300 Rs for train tickets from Bangalore to his village but during pandemic the train ticket also got high to Rs 1200/-.  On 12th May he decided to walk and started his journey with few other labourers. But he didn’t inform his family that he is returning home walking as his elderly sick parents will get worried.  So he informed his family that he is still waiting for train tickets.

Earlier Rajesh was working at his village at Tribhuvan Nagar, which is a small village at Nepal border and he was earning Rs250/- per day.  He shifted to Bengaluru as he is earning double and he can send money which is enough to sustain his family including his wife, two young children and elderly parents. He lives in a thatched roof house set amid sugarcane and wheat fields.

He walked for 10 long days. His legs were swollen and his blisters had burst. But he didn’t stop walking. Police were stopping migrant labourers from walking, so they followed railway tracks to avoid police on the roads. He was walking with 11 other migrant labourers and few of them had smart phones which helped them to navigate their routes. They used to walk for the entire day and slept for few hours at night in whichever place they halted during their journey back home.

On the journey Chouhan met with many other migrant labourers walking towards their villages.  In the group there were Brahmins and Thakurs, who belonged to upper castes and even Chamars who belonged to lower caste. But while walking back home they were all united and they felt no differences between castes.  People slept together and shared each other’s food and water.  Rajesh broke his slipper on the 2nd day when everyone shared fund to buy him a new slipper. After that they walked for 5 days. They had money for buying biscuits only.  After crossing Telengana- Maharashtra border they came across an NGO who offered them lunch and drinking water. 300 migrant labourers were sitting together and eating when suddenly police came and made them run as they were not maintaining social distancing.  Food and water were snatched from many old men, females and children. Rajesh saw the cruel side of our society. Even the NGO was asked to stop giving food.

On the highway back to home, pandemic was of low priority to them. They thought they all will die in hunger, thirst, exhaustion and pain.  Many migrant labourers died on the way either through starvation, exhaustion, or road and rail accidents.

Finally on the 8th day he reached the border of Uttar Pradesh and the joy of reaching near to his home gave him immense happiness and it made him forget all his pain. He reached his village on the 10th day when he was placed for quarantine by the local police.

Even after facing so many challenges in his way back home he never gave up. He believed in himself and stayed motivated which made him succeed in his journey back home.

So now, after reading my story, don’t you think Rajesh is the perfect example of a Superhero?

.

Written By : Anushka Roy

.

Published by:

Responsibilities of NGOs in post calamity period

Blog Uncategorized

Non-Governmental Organisations enable citizens to work together voluntarily to promote social values and civic goals, which are important to them. They promote local initiative and problem solving through their work in a broad array of fields – environment, health, poverty alleviation, culture & the arts, education, etc. NGOs reflect the diversity of society itself. They also help the society by empowering citizens and promoting change at the “grass roots”. 

There are 93510 NGOs (including Voluntary Organisations) in PAN India & 7095 enrolled NGOs (including Voluntary Organisations) in West Benagl (source https://ngodarpan.gov.in ; Dated 18-06-2020). In a State like West Bengal, with differences between individual districts and regions, NGOs are characterized by a rich diversity of approaches, traditions, and activities rendering the task of generalization difficult, if not impossible. They cover most areas of the State and their activities affect a significant proportion of the population living in poverty.

.

Now, let’s dive into the discussion of the dedication of NGOs in the post Amphan period in Bengal, with the pre-existing menace- COVID19. Literally the NGOs stuck between a rock and hard place.

Cyclone Amphan was worst cyclone in Bengal in 283 years, since the Great Bengal Cyclone of 1737 and Sundarban was the worst hit this time. As the UNESCO World Heritage stands in ruins, NGOs set up rehabilitation centres in the area and carried out extensive relief work for the tribal people, the stranded and anyone affected by Amphan. Organizations devoted their volunteers in order to provide emergency medical supplies, dry rations, tarpaulin sheets, mosquito-nets, materials for COVID-19 protection, solar lamps, education kits, sanitization kits, household items and water purifier. They also engaged in proactive rehabilitation centre and restoration of houses and logistics support. All the NGOs across and beyond the state have shown the potential of their performances, this time.

.

Meanwhile, Treasures of Innocence also extended their hands to distribute essential items among families of Sundarban – Kakdwip area & Gosaba area, in some relief operations with the help of their members and volunteers to sustain the stomach of the unfortunate ones in the devastating condition caused due to Amphan.

It was a tough job to reach out for those people in Sundarban area, as we were already engaged with relief distribution to the local slum children in Garia and nearby areas. The nation wise lockdown caused uncertainties and loss of jobs. The parents of those children’s were also no exception. At the same time, immunity boosting was the bare minimum initiative to be taken to combat the virus SARS-COV-2. So, in such a difficult time we stand beside them and distributed Masoor Dal, Potato, Soybean, Muri, Sattu, Biscuits, Cooking Oil, Turmeric powder, Cumin Seeds etc groceries.

But, most importantly, it is not about only distribution of some essential rations, it is the RADIATION OF POSITIVE VIBES that will surely impact an everlasting effect on those innocent minds. We believe there are so many benevolent people who also want to contribute for the society. But due to lack of contacts, they are unable to do that. So it’s an open invitation letter from team ‘Treasures of Innocence’ to everyone going through this article, to join and be part of us!!

Composed by: Arnab Sarkar

.

Published by:

কমলাম্মা – আমাদের হিরো ঠাম্মা

কমলাম্মা মাইসোরের চেন্নাগিরিকোপ্পালা নামক এক  গ্রামে থাকা, শোত্তর বছরের এক বৃদ্ধা  | তার দুটি ছেলেও আছে, তবে সে এখনো নিজে খেটে খায় | তার স্বামী অনেক বছর আগেই মারা গেছেন | স্বামী চলে যাওয়ার পর থেকেই সে লোকের বাড়ি-বাড়ি কাজ করে খায় |

.

করোনা সংক্রমণের কারণে লোকডাউন হয়ায় আর তার বৃদ্ধ বয়সের কারণে সে নিজের কাজ হারিয়ে ফেলে | সরকারের দেয়া ছশো-টাকা পেনশন-ই  তার একমাত্র ভরসা সংসার চালানোর জন্য | এই লোকডাউনে তার ঘরে কিছু খাবার মতো ছিল না |

.

তার কষ্টের কথা শুনে স্থানীয় এক নেতা রোটারি হেরিটেজ মাইশুরু  নামক এক সঙ্গস্থায় গিয়ে কমলাম্মা কে খাবার পাঠানোর আবেদন করেন |  রোটারি হেরিটেজ মাইশুরু থেকে “অন্নদান” শিবির এর মাধ্যমে ঠাকুমাটার কাছে খাবার পৌঁছে যেত |

.

পনেরো দিন আগেকার ঘটনা, একদিন কমলাম্মা রোটারি হেরিটেজ মাইশুরু সঙ্গস্থার অফিস এ গিয়ে পৌছাল | সবাই ভাবলো সে বোধয় খাবার পবার আশায় এসেছে | সেই অণুযাই তার দিকে একটা খাবারের প্যকেট বাড়িয়ে দেয়া হলো | কিন্তু সে সেটি গ্রহণ করল না | প্রথমে দ্বিধা বোধ করলেও, কিছুক্ষন পর শাড়ির আঁচলে বাঁধা পুটলি থেকে একটি পাঁচশ-টাকার নোট বের করে বলল, ” আমি জানি এই টাকাটা খুব-ই  সামান্য কিন্তু এর থেকে বেশি দেয়ার আমার ক্ষমতা নেই| কাল-ই আমি আমার পেনশন পেয়েছি, তাই আজ এলাম | আমি দেখেছি তোমরা গরিব-দুঃখীদেরকে অনেক দিন ধরে খাবার খাওয়াছো এই কঠিন সময় | আমার তরফ থেকে একটা ছোট্ট অবদান, রাখো |” সঙ্গস্থার লোকজন লজ্জিত হয়ে টাকাটা প্রথমে তাকে ফিরিয়ে নিতে বলল কিন্তু সে অনুরোধ করায় তার সন্মান রাখতে অবদান টি  সঙ্গস্থা থেকে গ্রহণ করে  নিল  আর তার এই উদারতার গল্প ইন্টারনেটের মাধ্যমে সব জায়গায় ছড়িয়ে দিল | কমলাম্মা ঠাকুমা আমাদের শেখাল যে, কাউকে কিছু দেয়ার জন্য আসলে বড়ো মন দরকার, সে আমাদের আর্থিক অবস্থা যাই হোক না কেন |

.

 কলমে :  রচনা দাস

Published by:

তবারক এর তরবারী

একটা ভয়ানক ভয়ে সবার মধ্যে ঘনিয়ে এসেছে, নিজের চারপাশ টা আজকাল বড্ড একলা আর বড্ড মন খারাপ লাগে। বাচ্চাদের স্কুল নেই, বড়দের কাজ নেই, আবার কিছু প্রানের বাসনার জায়গা টুকুও নেই। কোরোনা একলা দাপট করে হচ্ছিলনা তারপর আবার জুড়ে বসলো পাগল করা সেই আমফান। মন এর বল, নেই বললেই চলে। রাস্তা এ গাড়ি বাহন বন্ধ, ট্রেন এ লোকেরা আসতে পারছেনা, কত মানুষ আজ হাহাকার করছে বাড়ি ফিরে আসবার জন্য, কতো দুঃখ চারিপাশে কিন্তু ওই যে, অনুভূতি, যেমন প্রেরণা, ভালোবাসা, পরিশ্রম তারা এখনো মানুষ খোজেঁ, এমন মানুষ যারা সমাজে আলোর শিখা হয়ে দাঁড়াবে। তেমন হচ্ছে আমাদের ছোট্ট 11 বছরের “তাবাড়াক” এর গল্প। সত্য ঘটে যাওয়া গল্প।


আমরা যখন বাড়িতে বসে প্রায় মনোবল মৃত, তখন এই বাচ্চা ছেলেটি আমাদের সামনে এসে দাঁড়ালো। 9 দিন ধরে, রিকশা চালিয়ে, সে তার মা আর  বাবা কে উত্তর প্রদেশ এর বেনারস থেকে বিহার এর আরারিয়া তে ফিরিয়ে এনেছে। তাঁর বাবা লকডাউন এর 1 মাস আগে, এক একসিডেন্ট এ নিজের পা হারায়ে, বাবা কে দেখতে গিয়েই, অন্ধ মা আর ছোট তাবাড়াক আটকে পরে বেনারস এ, কিন্তু কতদিন তাঁরা আর আটকে থাকবে এইভাবে, কতদিন আর এই ছোট্ট ছেলে তার মা বাবার এই কষ্ট দেখবে, তাই সে বেরিয়ে পড়লো, বেরিয়ে পড়লো নতুন এক দিশার দিকে, ভালোবাসা আর সাহস নিয়ে সে জয় করলো এই কঠিন রাস্তা, নিভু নিভু আশার আলো কে সে আবার জ্বালিয়ে তুললো, মানুষ আবার ফিরে পেলো একটু সাহস, তারা আবার স্থির করলো, যে তারা এই লড়াই জয়ী করবেই, সুস্থ তারা থাকবে, নিয়ম তারা মানবে আর কাউর দরকারে সবাই সবার পাশে দাড়াবো।

মনুষ্যত্ব দিয়ে জয়ে করবো এই জীবন মরণের লড়াই। এই প্রতিজ্ঞা করে চলো এগোই আমরা।

.

 কলমে : শ্রী চক্রবর্তী

.

Published by:

ভাল থাকার লড়াই

আজ ফতেমার (নাম পরিবর্তিত ) মনটা খুব খারাপ শনিবার হওয়া সত্যেও সে ঘরে মুখ ভার করে বসে আছে। তার আব্বা তাকে জিজ্ঞেস করলেন কিরে কি হয়েছে ? ফতেমা উত্তর দিল আজ Treasures of Innocence এ আমাদের ই-দৃষ্টিকোণ অর্থাৎ কম্পিউটার ক্লাস ছিল কিন্তু লকডাউনের জন্য বন্ধ আছে। একই অবস্থা জয়, বিকাশ, আকরম, মার্টিন, পূজাদের (প্রত্যেকের নাম পরিবর্তিত) কারন তারা মজার মজার জিনিস শিখতে পারছে না এবং ই-দৃষ্টিকোণে আসতে পারছে না অনিন্দিতা দিদির ক্লাস সহ অন্যান্য ক্লাস করতে পারছে না।  ওরা রোজ ভাবে করবে আবার দাদুর সাথে দেখা হবে, অনিন্দিতা দিদির ক্লাস করবে, শ্রেয়াম দাদা মেখলা দি, মহুয়া দিদি, শ্রেয়া দি আরো কত দাদা দিদিরা।

রানী দি র কাছে গল্প শোনা আর কত কত মজা – কারোর সাথে দেখা নেই….

প্রত্যেকেই স্বেচ্ছায় গৃহবন্দী। 

আজ পৃথিবী এক কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে।  কঠিন রোগ পৃথিবীর প্রাণশক্তিকে গ্রাস করছে।  ডাক্তার, বিজ্ঞানী, পুলিশ, স্বাস্থকর্মী, পরিচ্ছন্নতা রক্ষার কর্মীরা অনবরত লড়াই করে চলেছে পৃথিবীকে সুস্থ করতে তার প্রাণশক্তি ফিরিয়ে আনতে।  সরকার প্রথমে ২১ দিন পরে সেটা বাড়িয়ে আরও ২১ দিন লকডাউন ঘোষণা করেছেন। সবাইকে নিজ গৃহে থাকতে অনুরোধ করেছেন। যখন রুটি রুজির টান তবুও সবাই সরকারের অনুরোধ যথাসাধ্য মেনে চলেছে আর আমাদের ছাত্র ছাত্রীরাও তার ব্যতিক্রম নয়। 

এই কঠিন পরিস্থিতিতেও আমরা চেষ্টাকরছি আমাদের ছাত্র ছাত্রীদের সেই একচিলতে ঘরে পৌঁছে যেতে যেখানে নুন আনতে পান্তা ফুরোয়। আর্থিক ভাবে সাহায্যের প্রস্তুতির সাথে সাথে আমরা মানসিক ভাবেও দৃঢ়সঙ্কল্প বদ্ধ কারন এই কঠিন পরিস্থিতিতে আমাদের ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক কর্তব্য।  তাই আমরাও ময়দানে নেমে পরলাম আমাদের যোদ্ধাদের নিয়ে।

সীমা দি, অনিন্দিতা দি, মেখলা দি, আমি – আমরা সকলে রানী দিদির তথ্যাবধানে নির্দিষ্ট ভাবে দায়ীত্ব ভাগকরে নিলাম এবং ফোনের মাধ্যমে আমাদের শিশুদের সাথে যোগাযোগ রেখে চলেছি অনবরত। WHO এর গাইডলাইন অনুসরণ করে তাদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করে চলেছি।

আমাদের সাথে কথা বলতে পেরে আমাদের কমিউনিটির ছাত্রছাত্রীরা আপ্লুত।  আমাদের প্রতিজ্ঞা এই বিশ্বমহামারির সময় আমাদে ছাত্রছাত্রীদের মানসিকভাবে সাস্থবান রাখা।  তাদের আমরা নির্দিষ্ট কাজ দিচ্ছি তারাও ঠিক সময় তাদের কাজগুলো করে জানাচ্ছে এতে তারা যেমন নিজেদের ব্যস্ত রাখছে সেই ভাবেই ঘরবন্দী অবস্থাতেও ভাল থাকছে। প্রত্যেকে তারা তাদের মনের কথাগুলো তাদের ভাল লাগা, খারাপ লাগা, আনন্দ কিংবা দুঃখ গুলো আমাদের সাথে ভাগ করে নিচ্ছে আমরা তাদের মনে জোর দিয়ে যাচ্ছি কারন এই লড়াইয়ে  আমরা জিতবই।  মানব সভ্যতা এক নতুন দিগন্তের সূচনা করবে এবং আমাদের ছাত্রছাত্রীরাও সেই দিগন্তের কাণ্ডারী হবে। 

শুধু একটাই অনুরোধ পৃথিবীর  এই বিপদে সবাই দয়া করে ঘরে থাকুন এবং সুস্থ থাকুন। 

কোনও রকম COUNSELLING এর দরকার পড়লে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।  এছাড়াও আপনারা যদি কোনও রকম ভাবে আমাদের সাহায্য করতে পারেন অবশ্যই যোগাযোগ করুন – 
+91 98309 92637

www.treasuresofinnocence.org 

 কলমে : গোলক দেবনাথ
(সেচ্ছাসেবক)

Published by:

ফিরে দেখা catch them young প্রচেষ্টা…

Treasures of Innocence একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা যারা কলকাতার বিভিন্ন স্কুলে তাদের Catch Them Young Program টি পরিচালনা করেন। আমি সেই অনুষ্ঠানের একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসাবে উত্তর থেকে দক্ষিণ কলকাতার প্রায় দশটি স্কুলে অংশগ্রহণ করেছি। গত জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারির প্রথম দিক পর্যন্ত প্রত্যেকটি স্কুলে স্কুলে একটি বার্ষিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয়।

আমরা ঝাঁ চকচকে কলকাতা শহর দেখলেও কলকাতা কিন্তু তার বস্তি কিংবা এক কামরার টালির ঘর গুলিকে বাদ দিয়ে নয়। এখানে সুবিধা বন্ঞ্চিত মানুষের অভাব নেই আর

Treasures of Innocence ক্রমাগত চেষ্টা করে চলেছে সেই সমস্ত ঘরের ছেলে মেয়েদের কাছে পৌঁছে যেতে যাদের মেধা ও উদ্দম ইচ্ছাশক্তি একদিন সমাজকে কান্ডারির ভুমিকায় অবতীর্ণ করবে।  

সারা বছর ধরে চলা বিভিন্ন ক্রিয়াকর্ম যেমন ছবি আঁকা, ক্যালেন্ডার বানানো, গল্পের বই বানানো, লাইব্রেরী তৈরি এবং পড়াশোনায় উৎকর্ষতা তৈরির মাধ্যমে আমরা এগিয়ে চলি।  আমরা বিশ্বাস করি প্রত্যেকটি ছাত্র ছাত্রীর মধ্যেই তাদের বৈশিষ্ট্য  এবং পারদর্শীতা সুপ্তাবস্থায় থাকে আর আমরা চেষ্টা করি তাদের সামনে একটি নতুন দিগন্ত মেলে ধরার যাতে তারা নিজেদের মধ্যে লুকিয়ে থাকা প্রতিভাগুলি বিকশিত করতে পারে। আমরা প্রত্যেকটি স্কুলে স্কুলে একটি পরীক্ষা নিয়ে থাকি আর সেই পরীক্ষা অর্থাৎ ইন্টারস্কুল কম্পিটিশনের মাধ্যমে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত সেরা ছাত্র ছাত্রীদের পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করে তুলি এবং আমরা আমাদের বার্ষিকী অনুষ্ঠানের দিন সেই পুরস্কার প্রদান করে থাকি। 

আমাদের এবছরের অনুষ্ঠানের অন্যতম বিষয়বস্তু ছিল পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও সুস্থ সমাজ। আমরা আমাদের ছাত্র ছাত্রীদের সারাবছর ধরে শিখিয়েছি নিজে কি ভাবে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকবে এবং বাড়ি ও স্কুল কিভাবে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখবে। নিয়মিত স্নান করা, খাওয়ার আগে ও পরে স্বাস্থ সংস্থার গাইডলাইন অনুসারে হাত ধোয়া, নোংরা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা, বাথরুম পরিস্কার রাখা, এর জন্য বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের বিভিন্ন স্কুল সংসদের কমিটি করতে সাহায্য করেছি এবং তারা সেই নিয়ম পালন করত নিষ্ঠার সহিত। সালমা,  রোহিত, পার্থ, প্রিয়া (নাম পরিবর্তিত) আরও অন্যান্য ছাত্র ছাত্রী তারা আমাদের বিভিন্ন স্কুলের দায়ীত্বে ছিল। আজ বিশ্ব যখন করোনা আতঙ্কে আতঙ্কিত তখন আমাদের ছাত্রছাত্রীরা স্বাস্থ সমন্ধে ওয়াকিবহাল। আমরা শিখিয়েছি মানসিক ও শারীরিক ভাবে কি করে সুস্থ থাকতে হয়। এছাড়াও তারা কুইজ কম্পিটিশন এবং প্রযেক্ট কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করে তাদের সেরাটা দিয়েছে ও পুরস্কার পেয়েছে যা তাদের সামনের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যেতে সাহস জোগাবে। 

আজ যারা শিশু আগামিকাল তারাই নাগরিক তাই আমরা চাই সমাজের প্রত্যেক সুবিধা বন্ঞ্চিত শিশুদের পাশে থেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে তাদের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনতে। জানি এই কাজটি এতটাও সহজ নয় কিন্তু আপনারা যারা আমাদের সচেতন সহনাগরিক তারা যদি একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আমরাও আমাদের হাসি ও ভালবাসা ভাগ করে নিতে পারব সেই সমস্ত মানুষগুলির সাথে যাদের সত্যি পাশে থাকার দরকার।  আমরা সদা সচেষ্ট একটি শিশুর সামনে একটি সুন্দর স্বাস্থবান ও নিরাপদ সমাজকে উপহার হিসাবে তুলে ধরতে, শুধু আপনাদের একটু ভালবাসার সহিত সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।  যে কোনও সাহায্যই কাম্য আর এই বিষয় যোগাযোগের জন্যে ওয়েবসাইট (www.treasuresofinnocence.org) ফলো করুন। 

ধন্যবাদ

কলমেঃ গোলক দেবনাথ
স্বেচ্ছাসেবক / Treasures of Innocence

Published by:
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Treasures of Innocence