ফিরে দেখা catch them young প্রচেষ্টা…

Comment

Blog

Treasures of Innocence একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা যারা কলকাতার বিভিন্ন স্কুলে তাদের Catch Them Young Program টি পরিচালনা করেন। আমি সেই অনুষ্ঠানের একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসাবে উত্তর থেকে দক্ষিণ কলকাতার প্রায় দশটি স্কুলে অংশগ্রহণ করেছি। গত জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারির প্রথম দিক পর্যন্ত প্রত্যেকটি স্কুলে স্কুলে একটি বার্ষিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয়।

আমরা ঝাঁ চকচকে কলকাতা শহর দেখলেও কলকাতা কিন্তু তার বস্তি কিংবা এক কামরার টালির ঘর গুলিকে বাদ দিয়ে নয়। এখানে সুবিধা বন্ঞ্চিত মানুষের অভাব নেই আর

Treasures of Innocence ক্রমাগত চেষ্টা করে চলেছে সেই সমস্ত ঘরের ছেলে মেয়েদের কাছে পৌঁছে যেতে যাদের মেধা ও উদ্দম ইচ্ছাশক্তি একদিন সমাজকে কান্ডারির ভুমিকায় অবতীর্ণ করবে।  

সারা বছর ধরে চলা বিভিন্ন ক্রিয়াকর্ম যেমন ছবি আঁকা, ক্যালেন্ডার বানানো, গল্পের বই বানানো, লাইব্রেরী তৈরি এবং পড়াশোনায় উৎকর্ষতা তৈরির মাধ্যমে আমরা এগিয়ে চলি।  আমরা বিশ্বাস করি প্রত্যেকটি ছাত্র ছাত্রীর মধ্যেই তাদের বৈশিষ্ট্য  এবং পারদর্শীতা সুপ্তাবস্থায় থাকে আর আমরা চেষ্টা করি তাদের সামনে একটি নতুন দিগন্ত মেলে ধরার যাতে তারা নিজেদের মধ্যে লুকিয়ে থাকা প্রতিভাগুলি বিকশিত করতে পারে। আমরা প্রত্যেকটি স্কুলে স্কুলে একটি পরীক্ষা নিয়ে থাকি আর সেই পরীক্ষা অর্থাৎ ইন্টারস্কুল কম্পিটিশনের মাধ্যমে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত সেরা ছাত্র ছাত্রীদের পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করে তুলি এবং আমরা আমাদের বার্ষিকী অনুষ্ঠানের দিন সেই পুরস্কার প্রদান করে থাকি। 

আমাদের এবছরের অনুষ্ঠানের অন্যতম বিষয়বস্তু ছিল পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা ও সুস্থ সমাজ। আমরা আমাদের ছাত্র ছাত্রীদের সারাবছর ধরে শিখিয়েছি নিজে কি ভাবে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকবে এবং বাড়ি ও স্কুল কিভাবে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখবে। নিয়মিত স্নান করা, খাওয়ার আগে ও পরে স্বাস্থ সংস্থার গাইডলাইন অনুসারে হাত ধোয়া, নোংরা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা, বাথরুম পরিস্কার রাখা, এর জন্য বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের বিভিন্ন স্কুল সংসদের কমিটি করতে সাহায্য করেছি এবং তারা সেই নিয়ম পালন করত নিষ্ঠার সহিত। সালমা,  রোহিত, পার্থ, প্রিয়া (নাম পরিবর্তিত) আরও অন্যান্য ছাত্র ছাত্রী তারা আমাদের বিভিন্ন স্কুলের দায়ীত্বে ছিল। আজ বিশ্ব যখন করোনা আতঙ্কে আতঙ্কিত তখন আমাদের ছাত্রছাত্রীরা স্বাস্থ সমন্ধে ওয়াকিবহাল। আমরা শিখিয়েছি মানসিক ও শারীরিক ভাবে কি করে সুস্থ থাকতে হয়। এছাড়াও তারা কুইজ কম্পিটিশন এবং প্রযেক্ট কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করে তাদের সেরাটা দিয়েছে ও পুরস্কার পেয়েছে যা তাদের সামনের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যেতে সাহস জোগাবে। 

আজ যারা শিশু আগামিকাল তারাই নাগরিক তাই আমরা চাই সমাজের প্রত্যেক সুবিধা বন্ঞ্চিত শিশুদের পাশে থেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে তাদের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনতে। জানি এই কাজটি এতটাও সহজ নয় কিন্তু আপনারা যারা আমাদের সচেতন সহনাগরিক তারা যদি একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আমরাও আমাদের হাসি ও ভালবাসা ভাগ করে নিতে পারব সেই সমস্ত মানুষগুলির সাথে যাদের সত্যি পাশে থাকার দরকার।  আমরা সদা সচেষ্ট একটি শিশুর সামনে একটি সুন্দর স্বাস্থবান ও নিরাপদ সমাজকে উপহার হিসাবে তুলে ধরতে, শুধু আপনাদের একটু ভালবাসার সহিত সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।  যে কোনও সাহায্যই কাম্য আর এই বিষয় যোগাযোগের জন্যে ওয়েবসাইট (www.treasuresofinnocence.org) ফলো করুন। 

ধন্যবাদ

কলমেঃ গোলক দেবনাথ
স্বেচ্ছাসেবক / Treasures of Innocence

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Treasures of Innocence